রবিবার | ২১ এপ্রিল, ২০২৪
পানছড়িতে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত প্রতিরোধ কমিটির বিক্ষোভ

অবিলম্বে সংঘাত বন্ধের আহ্বান জানিয়ে পানছড়িতে বিক্ষোভ

প্রকাশঃ ১৮ মার্চ, ২০২৩ ০৭:৫৩:০৬ | আপডেটঃ ১৯ এপ্রিল, ২০২৪ ০৭:২১:০৭  |  ৫৬৭

সিএইচটি টুডে ডট কম ডেস্ক। খাগড়াছড়ির পানছড়িতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে পানছড়ি ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত প্রতিরোধ কমিটি। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন এলাকার জনপ্রতিনিধিবৃন্দ।


আজ শনিবার (১৮ মার্চ ২০২৩) সকাল ১১টার সময় পানছড়িতে জেএসএসের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের অনুপ্রবেশের প্রতিবাদে এবং তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবিতে এই বিক্ষোভের আয়োজন করা হয়।


সমাবেশের আগে বাবুড়ো পাড়া বাজার হতে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি করল্যাছড়ি স্কুলের সামনে এসে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়।


সমাবেশে পানছড়ি ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক ও পানছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শান্তি জীবন চাকমার সভাপতিত্বে ও চেঙ্গী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান অনিল চন্দ্র চাকমার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন চেঙ্গী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কালাচাঁদ চাকমা। এতে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন লোগাং ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান জয় কুমার চাকমা, লতিবান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ভূমিধর রোয়াজা, পানছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উচিত মনি চাকমা, চেঙ্গী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আনন্দ জয় চাকমা ও লোগাং ইউনিয়নের ১, ২ ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য মিতি চাকমা ও পানছড়ি উপজেলা কার্বারী এসোসিয়েশনের সদস্য ভারতবর্ষ পাড়ার কার্বারী তরুণ জ্যোতি চাকমা।


স্বাগত বক্তব্যে কালাচাঁদ চাকমা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে পার্বত্য চট্টগ্রামের জুম্ম জনগণও অংশগ্রহণ করেছিলেন। আমাদের আশা ছিল বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার সাথে সাথে জুম্ম জনগণ সুখে থাকবে। কিন্তু না, আমরা যুগ যুগ ধরে অত্যাচারিত, নিপীড়িত-নির্যাতিত এবং স্বাধীকার, অধিকার হারা। এখনো আমরা অধিকার পাইনি।


তিনি বলেন, আমাদের বৈ-সা-বি উসব সমাগত। কিন্তু দুঃখের বিষয় গতকাল ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতের খবর পেয়ে কখন কি হয় তা নিয়ে সারারাত ঘুমাতে পারিনি। এই সময়ে যদি ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত আরো লেগে যায় তাহলে আমাদের জনগণের অবস্থা কি হবে?


ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতে আমরা অনেক ভাই হারিয়েছি, আমাদের অনেক মা-বোনের বুক খালি হয়েছে, আমরা সেই ৮৬ সালে পানছড়ি গণহত্যা ও ৯২ সালে লোগাং গণহত্যা দেখেছি। আমরা আর কত ঘটনা দেখবো? আমাদের হুঁশ এখনো হয়নি, এখনো ভাইয়ে ভাইয়ে মারামারি-হানাহানি করছি।

তিনি জনসংহতি সমিতির সভাপতি সন্তু লারমার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‌অচিরেই ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধ করুন, জুম্ম জনগণকে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত থেকে মুক্ত করুন। তিনি ইউপিডিএফ সভাপতির প্রতিও একই আহ্বান জানান।

খাগড়াছড়ি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions