শনিবার | ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সমূহ কাল “আর্ন্তজাতিক আদিবাসী” দিবস পালন করবে

প্রকাশঃ ০৮ অগাস্ট, ২০১৮ ০৪:৫৭:২৯ | আপডেটঃ ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০২:৫১:০৩  |  ৫৪৬
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। পাহাড় এবং সমতলে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সমুহ কাল বৃহস্পতিবার  ৯আগষ্ট নানা আয়োজনে পালন করবে আর্ন্তজাতিক আদিবাসী দিবস। দিবসটি উপলক্ষে আয়োজন করা হয়েছে র‌্যালী ও আলোচনা সভা। সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীতে পাহাড়ীদের ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী হিসেবে স্বীকৃতি দিলেও পাহাড়ীরা আদিবাসী হিসেবে সংবিধানে স্বীকৃতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। “আদিবাসী জাতিসমূহের দেশান্তর: প্রতিরোধের সংগ্রাম” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এবার পালিত হবে আদিবাসী দিবস।  

বিভিন্ন দেশে যুগ যুগ ধরে বসবাসরত মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতিগুলোকে প্রয়োজনীয় স্বীকৃতি ও মুল্যায়ন করার লক্ষ্য ১৯৯০ সালের ১৮ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারন অধিবেশনে ব্যাপক আলোচনা হয়। ২০০৪ সালে ২২ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারন অধিবেশনে ২০০৫ সাল হতে ২০১৪ সাল পর্যন্ত  সময়কালকে আর্ন্তজাতিক আদিবাসী দিবস হিসেবে ঘোষনা করে। সেই থেকে পাহাড়ে আদিবাসীরা ৯ আগষ্টকে আর্ন্তজাতিক আদিবাসী দিবস হিসেবে পালন করে। পাহাড়ীদের দাবীর প্রেক্ষিতে আগের মেয়াদে বর্তমান সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীতে ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। কিন্তু পাহাড়ীরা আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি চায়। পাহাড়ীরা সমতল এবং পার্বত্য এলাকা ছেড়ে অন্য স্থানে পাড়ি জমাচ্ছে এবং দেশান্তরী হচ্ছে বলে পার্বত্য চট্টগ্রাম আদিবাসী ফোরামের দাবি। ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সমূহ আর্ন্তজাতিক আদিবাসী দিবসে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন ু আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের দাবি জানিয়েছে। এদিকে দিবসটি উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ ৩ র্পাবত্য জেলায় পাহাড়ী সংগঠনগুলো নানা কর্মসুচী হাতে নিয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং ঢাকায় আলাদাভাবে কর্মসুচী পালন করবে বিভিন্ন সংগঠন।

ঢাকায় আয়োজিত আদিবাসী ফোরামের র‌্যালী ও আলোচনা সভায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

রাঙামাটিতে সকাল সাড়ে ৯টায় পৌরসভা প্রাঙ্গনে জমায়েত , আলোচনা সভা ও র‌্যালী বের করা হবে। র‌্যালী ও আলোচনা সভা উদ্বোধন করবেন সংসদ সদস্য উষাতন তালুকদার, প্রধান অতিথি থাকবেন জাতীয় মানবধিকার কমিশনের সদস্য বাঞ্চিতা চাকমা।  

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের আদিবাসী ফোরামের সদস্য সচিব ইন্টুমনি চাকমা জানান, দিবসটি উপলক্ষে তিন পার্বত্য জেলা, সমতল এবং রাজধানীতে আলোচনা সভা ও র‌্যালী অনুষ্ঠিত হবে।
দিবসটি উপলক্ষে চাকমা রাজা ব্যারিষ্টার দেবাশীষ রায় বলেছেন, আদিবাসী হিসেবে সরকার স্বীকৃতি এই মুহুর্তে না দিলেও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আইনে সমতল এবং পাহাড়ে কয়টা জনগোষ্ঠী আছে তাদের নামগুলো যেন সঠিকভাবে আসে এই বিষয়ে তিনি সরকারকে পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানান। এছাড়া তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের কার্যক্রমে গতিশীলতা এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম ভুমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের বিধিমালা দ্রুত প্রণয়নের দাবি জানান।


এদিকে “আদিবাসী” শব্দ ব্যবহার এবং স্থান ব্যবহারে সরকার থেকে সংশ্লিষ্টদের সর্তক হওয়ার জন্য গতবছর সরকার থেকে আহবান জানানো হয়েছে।

এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions