শনিবার | ১৮ অগাস্ট, ২০১৮

কাপ্তাই হ্রদে কার্পজাতীয় মাছের পোনা অবমুক্তকরণ কার্যক্রম উদ্বোধন

প্রকাশঃ ১৯ মে, ২০১৮ ০৬:০৭:২৮ | আপডেটঃ ১৭ অগাস্ট, ২০১৮ ১০:৪৯:২১  |  ২১০
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। শনিবার রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে কার্পজাতীয় মাছের পোনা অবমুক্তকরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। সকালে শহরের ফিশারি ঘাটে আনুষ্ঠানিক মাছের পোনা অবমুক্ত করে কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. রইসুল আলম মন্ডল। পরে কাপ্তাই হ্রদ মস্য উন্নয়ন ও বিপণন কেন্দ্রের প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মন্ত্রণালয়রে সচিব ছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএফডিসি) চেয়ারম্যান দিলদার আহমদসহ অন্য কর্মকর্তারা। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, কাপ্তাই হ্রদ মস্য উন্নয়ন ও বিপণন কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক কমান্ডার মো. আসাদুজ্জামান। আলোচনা সভা শেষে জব্দ করা অবৈধ মাছ শিকারের জাল পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়।
এ সময় বক্তারা বলেছেন, কাপ্তাই হ্রদে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে ব্যাপক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করছে সরকার। এ লক্ষ্যে নেয়া হয়েছে নানামুখী পদক্ষেপ। হ্রদ হতে মাছ আহরণ করে রাজস্ব আয়ে এরই মধ্যে রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে চলতি বছর সর্বোচ্চ রাজস্ব আয় হয়েছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. রইসুল আলম মন্ডল বলেন, কাপ্তাই হ্রদে মৎস্য উন্নয়ন ও মৎস্যজীবীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের স্বার্থে বর্তমান সরকার মূলত তিন গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছে। ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে মৎস্যজীবীদের খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। কাপ্তাই লেকে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি, সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা জোরদারকরণ শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। প্রকল্পে ১টি হ্যাচারি, ১টি নার্সারি, ৬টি মনিটরিং সেন্টার এবং ২টি চেকপোস্ট নির্মাণ করা হয়েছে। মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি ও হ্রদের মৎস্য সম্পদের ভারসাম্য রক্ষায় জনস্বার্থে প্রতি বছর মে মাসে প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৫-৩০ মেট্রিক টন মাছের পোনা ছাড়া হয়।

অনুষ্ঠানে বলা হয়, কাপ্তাই হ্রদে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে সরকার বিএফডিসির মাধ্যমে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। বাস্তবায়ন করা হচ্ছে ব্যাপক কর্মকান্ড। এ লক্ষ্যে হ্রদে হ্যাচারি ও নার্সারি নির্মাণ করা হয়েছে। হ্রদ হতে অবৈধভাবে মৎস্য আহরণ রোধে সার্বক্ষণিক অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন মৌসুমে মাছ আহরণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি থাকে। বিভিন্ন এলাকায় অভয়াশ্রম ঘোষণা করে সেগুলোর যথাযথ ব্যবস্থাপনাসহ উপকেন্দ্র, চেকপোস্ট, হ্যাচারি ও নার্সারি অবকাঠামো স্থাপন করা হচ্ছে।

কাপ্তাই হ্রদ মস্য উন্নয়ন ও বিপণন কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক কমান্ডার মো. আসাদুজ্জামান জানান, এ বছর ৩২ টন পোনা ছাড়া হবে হ্রদে। এসব পোনার মধ্যে হ্রদের হ্যাচারি ও নার্সারিতে উৎপাদিত ১০ টন এবং বাইরে থেকে আমদানি করে এনে ২২ টন ছাড়া হবে। অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে চলতি বছর ১৩ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে হ্রদ থেকে মৎস্য আহরণ ও বিপণন খাতে। অবৈধভাবে মাছ আহরণ রোধে অভিযান অব্যাহতভাবে চলছে। অভিযানে প্রায় সময় অবৈধ কারেন্ট ও বেড়াজাল জব্দ করে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হচ্ছে।  

অর্থনীতি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions