সোমবার | ২৬ অগাস্ট, ২০১৯
রাঙামাটিতে দৈনিক যায় যায় দিনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আলোচনা সভায় বক্তারা

“পার্বত্য এলাকার গনমানুষের কথা তুলে ধরার আহবান”

প্রকাশঃ ১৫ জুলাই, ২০১৯ ০২:৪০:৫৮ | আপডেটঃ ২৫ অগাস্ট, ২০১৯ ১০:২০:৫১  |  ১৭৯
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। দেশের পাঠক নন্দিত অন্যতম জাতীয় দৈনিক যায় যায় দিন এর ১৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, পার্বত্য এলাকার গনমানুষের কথা বেশী বেশী করে তুলে ধরবে দৈনিক যায় যায় দিন। যায় যায় দিন সাপ্তাহিক থাকা অবস্থায় এক শ্রেণীর পাঠক তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিল, দৈনিক হওয়ার পর পত্রিকাটি সে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পেরেছে।

বক্তারা আরো বলেন, যায় যায় দিন শুরু থেকে পার্বত্য  এলাকার মানুষের কথা তোলে ধরেছে, আমরা চাই এটি আরো ব্যাপক আকারে প্রসারিত করা হোক। পার্বত্য এলাকার শান্তি সম্প্রীতি ও উন্নয়ন, শিল্প ও সংস্কৃতি তোলে আনবে পত্রিকাটি।

দৈনিক যায় যায় দিন পত্রিকার ১৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার সকালে রাঙামাটি রিপোটার্স ইউনিটি কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা ও কেক কেটে জন্মদিনের উৎসব পালন করা হয়।

 দৈনিক যায় যায় দিনের রাঙামাটির ষ্টাফ রিপোর্টার ফজলুর রহমান রাজন এর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন  রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক গিরিদর্পনের সম্পাদক একেএম মকছুদ আহম্মদ, রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল, রাঙামাটি রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা ও রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সিএইচটি নিউজ টোয়েন্টি ফোর ডট কম এর সম্পাদক শামসুল আলম। এতে আরো অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাঙামাটি সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি নন্দন দেবনাথ, সাধারন সম্পাদক মিল্টন বাহাদুর , রাঙামাটি সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক ও ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি হিমেল চাকমা, রাঙামাটি জার্নালিষ্ট এসোসিয়শনের সাধারন সম্পাদক দীপ্ত হান্নান, দৈনিক সমকালের ষ্টাফ রিপোর্টার সত্রং চাকমা, দীপ্ত টেলিভিশনের রাঙামাটি প্রতিনিধি সৈকত রঞ্জন চৌধুরী,  দৈনিক গিরিদর্পনের ষ্টাফ রিপোর্টার শিশির দাশ বাবলা ও সাংবাদিক সুপ্রিয় চাকমা শুভসহ বিভিন্ন পর্যায়ের শুভাকাঙ্খীরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় রাঙামাটি পৌর সভার আকবর হোসেন চৌধুরী বলেন, একটা সময় পাহাড়ের সাংবাদিকদের  অনেক কষ্ট করে নিউজ পাঠাতে হতো, তখন আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল না, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশকে ডিজিলাইটাজ করতে নানা উদ্যেগ গ্রহণ করে, এর ফলশ্রুতিতে দেশ তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে অনেক এগিয়ে যায়। যার সুবিধা ভোগ করছে সামাজিক মাধ্যমে ব্যবহারকারী, অনলাইন, পত্রিকা ও টেলিভিশনগুলো।

তিনি যায় যায় দিন পত্রিকার কর্তৃপক্ষের কাছে পার্বত্য চট্টগ্রামের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা, উন্নয়ন ও সমস্যাসহ সব ধরণের সংবাদ পরিবেশন করার আহবান জানান।

দৈনিক গিরিদর্পনের সম্পাদক একেএম মকছুদ আহম্মদ তার বক্তব্যে বলেন, যায় যায় দিন যখন সাপ্তাহিক ছিল তখন থেকে আমি তার ভক্ত, সুযোগ পেলে যায় যায় দিন পড়ি। পার্বত্য চট্টগ্রামে নানা সমস্যা আছে, শান্তি চুক্তির পরও পাহাড়ে শান্তি আসেনি, এখানকার উন্নয়ন সমস্যা দুর্নীতি অনিয়ম সব কিছু নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে পত্রিকাটি পাহাড়ে মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারে।  



তিনি আরো বলেন, একটি পত্রিকা টানা ১৪ বছর টিকে থাকা খুব কঠিন, স্থানীয় পত্রিকাগুলো নানা সংকটময় মুহুর্ত পার করছে, সরকারি বিজ্ঞাপন পাচ্ছে না। সরকার ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন এর কথা বলছে, সরকারি যদি কোন সহযোগিতার হাত প্রসারিত না করে তাহলে স্থানীয় পত্রিকাসহ জাতীয় পত্রিকাগুলো টিকে থাকা কঠিন হবে। সরকারকে এগুলো ভাবতে হবে।

রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল বলেন, দৈনিক যায় যায় দিন শুরু থেকে পার্বত্য এলাকার শান্তি সম্প্রীতি ও উন্নয়নের কথা বলেছে, আমরা চাই ভবিষ্যতে পত্রিকাটি পার্বত্য এলাকার আনাচে কানাচের সংবাদ পরিবেশন করে পাহাড়ে প্রতিটি মানুষের মন জয় করে নিবে।

আলোচনা সভায় অন্য বক্তারা দৈনিক যায় যায় দিন পত্রিকার জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে তারা পত্রিকাটি উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করেন।

আলোচনা সভা শেষে কেক কেটে জন্মদিন পালন করা হয়।

রাঙামাটি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions