বুধবার | ১২ ডিসেম্বর, ২০১৮

বিএনপির রাজনীতিতে আবারো মণিস্বপন দেওয়ান

প্রকাশঃ ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ১১:১১:২৭ | আপডেটঃ ১২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৬:১৩:১৮  |  ২৩১২
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। রাঙামাটি রাজনীতিতে নির্বাচন কেন্দ্রিক আবারো ফিরে  এসেছেন সাবেক উপমন্ত্রী মণিস্বপন দেওয়ান। ২০০১ সনে বিএনপি থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর জোট সরকারের আমলে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। পরে দলের বিভেদ এর কারণে তিনি এলডিপিতে যোগ দেন এবং ২০০৮ সনে সংসদ নির্বাচনে অংশ নেন। এরপর থেকে রাজনীতিতে আর সক্রিয় ছিলেন না। এবারের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কেন্দ্রীয় বিএনপির কার্যালয় থেকে ১৪ নভেম্বর মনোনয়ন নেন, একই সাথে বিএনপি বহিস্কারদেশ প্রত্যাহার করে নেয়।
ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের ১০ বছরের শাসন আমলে যারা রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে রাজনীতি করেছেন, মামলা হামলার শিকার হয়েছেন এমন নেতারা মনোনয়ন পাওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত মণিস্বপন দেওয়ান মনোনয়ন পেতে পারেন। বিএনপি থেকে এপর্যন্ত ৮জন মনোনয়ন নিয়েছেন এরা হলেন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ ধর্মবিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট দীপেন দেওয়ান, কেন্দ্রীয় নেতা কর্ণেল মণীষ দেওয়ান, জেলা বিএনপির সভাপতি হাজী শাহ আলম, সহ সভাপতি সাইফুল ইসলাম ভুট্টো, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট সাইফুল ইসলাম পনির, সিনিয়র যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মামুনুর রশীদ, জেলা বিএনপির সদস্য দিলদার হোসেন ও সাবেক উপমন্ত্রী মনিস্বপন দেওয়ান।

আওয়ামীলীগ মনিস্বপন দেওয়ানকে বসন্তের কোকিল কিংবা শীতের অতিথি পাখি বললেও জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ এই জানান, দল যা করবে দলের ভালোর জন্যই করবে।

জেলা বিএনপির সভাপতি হাজী শাহ আলম বলেন, নির্বাচনে আমিও একজন মনোনয়ন প্রত্যাশী, তবে দল যাদের আগে বহিস্কার করেছিল তাদের বহিস্কার আদেশ প্রত্যাহার করেছে, একইভাবে মণিস্বপন দেওয়ান এর বহিস্কার আদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে আমাদের জেলা বিএনপির একটি পুর্বের সিদ্ধান্ত ছিল দল যাকে মনোনয়ন দেয় তার জন্য আমরা কাজ করব, আমরা সেই সিদ্বান্তে এখনো অটল আছি। কেন্দ্র যদি মনে করে মনিস্বপন দেওয়ানকে দিলে আসনটি ফিরে পাবে তাহলে আমরা তার পক্ষে কাজ করব, কারণ খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনের অংশ হচ্ছে নির্বাচন, আমাদের এখন টার্গেট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা এবং যে কোন উপায়ে সরকার গঠন করা তাই আমরা সর্বোচ্চ ত্যাগ শিকার করতে প্রস্তুত আছি।

জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ন সম্পাদক এডভোকেট মামুনুর রশীদ জানান, আমাদের এখন আসন দরকার, আমরা দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাব না। মনিস্বপন দেওয়ান দীর্ঘ সময় রাজনীতিতে অনুপস্থিত ছিলেন এটা যেমন সত্য, তেমনি দল তার বহিস্কারদেশ প্রত্যাহার করে মনোনয়ন পত্র দিয়েছে এটাও সত্য। আমরা  এখন দলে বিভেদ নয় আসন পুনরুদ্ধার নিয়ে চিন্তা করছি, তবে দল ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা কর্মীদের মনোনয়ন দিবে এমনটা প্রত্যাশা আমাদের।

তবে বিষয়টি নিয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী এডভোকেট দীপেন দেওয়ান।

মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক উপমন্ত্রী মনিস্বপন দেওয়ান বলেছেন, সবাই মনোনয়ন পাওয়ার জন্য আশা করে, আমিও আশাবাদী। আমি মনোনয়ন পেলে আসনটি বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে উপহার দিতে পারব।

তবে দল থেকে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করলেও এখনো জেলা বিএনপির কারো সাথে কিংবা জেলা বিএনপির কার্যালয়ে যাননি মনিস্বপন দেওয়ান।

এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions