শনিবার | ১৭ নভেম্বর, ২০১৮

খাগড়াছড়ি হত্যাকান্ডে বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি চার সংগঠনের

প্রকাশঃ ২০ অগাস্ট, ২০১৮ ১০:৪৯:১৫ | আপডেটঃ ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:২২:৪৪  |  ২৫২
সিএইচটি টুডে ডট কম, খাগড়াছড়ি। খাগড়াছড়ির জেলা শহরে ইউপিডিএফ সমর্থিত সংগঠনের নেতাকর্মীসহ ৭ এলাকাবাসী হত্যার ঘটনা তদন্তে প্রশাসনের করা ৫ সদস্যের কমিটি কাজ শুরু করলেও ইউডিপিএফভূক্ত চারটি সংগঠন এই কমিটিকে প্রত্যাখান করে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি তুলেছে।

ইউনাইটেড পিপলস্ ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)-ভুক্ত চারটি সংগঠন খাগড়াছড়ি সদরের স্বনির্ভর-পেরাছড়া হত্যাকা- তদন্তের জন্য খাগড়াছড়ির অতিরিক্তি জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ আবু ইউসুফকে প্রধান করে গঠিত কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করে অবিলম্বে সুষ্ঠ, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছে।

গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সভাপতি অংগ্য মারমা,পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি বিনয়ন চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভানেত্রী নিরূপা চাকমা ও ইউনাইটেড ওয়ার্কার্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের সভাপতি সচিব চাকমা এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, যে প্রশাসনের ব্যর্থতার জন্য পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের পাহারার মধ্যে জেলাশহরের গুরুত্বপূর্ণ বাজার স্বনির্ভরে এত বড় হত্যাযজ্ঞ সংঘটিত হয়েছে সে প্রশাসনের পক্ষে নিরপেক্ষভাবে এ ঘটনার তদন্ত করা কখনোই সম্ভব নয়। স্থানীয় প্রশাসনের কোন মহলের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সহযোগিতা ছাড়া শহরের কেন্দ্রস্থলে এসে ১০-১২ জন সন্ত্রাসীর পক্ষে ২৫ মিনিট ধরে এভাবে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে বিজিবি পোস্টের পাশ দিয়ে হেঁটে পালিয়ে যাওয়া কখনোই সম্ভব নয়, আর তাই প্রশাসন কোনভাবে এ হত্যাকা-ের দায় এড়াতে পারে না।’

হামলার ২ দিন পরও জড়িত অপরাধীদের গ্রেফতার না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে চার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে অভিযোগ তুলেন, ‘সন্ত্রাসীরা খাগড়াছড়ি শহরের মহাজনপাড়া, মধুপুর, তেঁতুলতলা ও খাগড়াপুরে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে’।
অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও শনিবারের হত্যাকা- তদন্তে জেলা প্রশাসনে করা কমিটির প্রধান মোহাম্মদ আবু ইউসুফ জানান, প্রশাসন সরকারি দায়িত্বের অংশ হিসেবেই কমিটি করেছে। এরিমধ্যে আমরা অনেক তথ্য সংগ্রহ করেছি। নির্ধারিত সময়ে অর্থাৎ সাত কর্মদিবসের মধ্যেই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। বিচার বিভাগয়ি তদন্ত কমিটি গঠনের এখতিয়ার বিচার বিভাগের।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মো: শহিদুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবং জনমনের উদ্বেগ কাটাতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। আজ মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রামের জিওসি, বিভাগীয় কমিশনার এবং চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি-এর উপস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ন সভা অনুষ্ঠিত হবে।
তিনি ইউপিডিএফভূক্ত চার সংগঠনের দাবির বিষয়ে বলেন, বিচার বিভাগের পক্ষেই বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা সম্ভব। প্রশাসনের পক্ষে যতোটুকু সম্ভব তা আন্তরিকতার সাথেই করা হচ্ছে। এবং তদন্ত কমিটির কাজও ইতিবাচক গতিতে এগোচ্ছে। কারো কোন দাবি থাকলে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছেই করা বাঞ্চনীয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার সকালে খাগড়াছড়ির স্বনির্র্ভর বাজারে সন্ত্রাসীদের গুলিতে প্রাণ হারায় ইউপিডিএফ সমর্থিত পিসিপির খাগড়াছড়ি শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন চাকমাসহ ৬ জন। হামলার সময় পালাতে গিয়ে আরেক বৃদ্ধ রাস্তায় পড়ে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে মারা যায়। নিহত ৭ জনের মধ্যে ৪ জনই পথচারী।
খাগড়াছড়ি হত্যাকান্ডে বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি চার সংগঠনের

সিএইচটি টুডে ডট কম, খাগড়াছড়ি। খাগড়াছড়ির জেলা শহরে ইউপিডিএফ সমর্থিত সংগঠনের নেতাকর্মীসহ ৭ এলাকাবাসী হত্যার ঘটনা তদন্তে প্রশাসনের করা ৫ সদস্যের কমিটি কাজ শুরু করলেও ইউডিপিএফভূক্ত চারটি সংগঠন এই কমিটিকে প্রত্যাখান করে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি তুলেছে।

ইউনাইটেড পিপলস্ ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)-ভুক্ত চারটি সংগঠন খাগড়াছড়ি সদরের স্বনির্ভর-পেরাছড়া হত্যাকা- তদন্তের জন্য খাগড়াছড়ির অতিরিক্তি জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ আবু ইউসুফকে প্রধান করে গঠিত কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করে অবিলম্বে সুষ্ঠ, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছে।

গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সভাপতি অংগ্য মারমা,পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি বিনয়ন চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভানেত্রী নিরূপা চাকমা ও ইউনাইটেড ওয়ার্কার্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের সভাপতি সচিব চাকমা এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, যে প্রশাসনের ব্যর্থতার জন্য পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের পাহারার মধ্যে জেলাশহরের গুরুত্বপূর্ণ বাজার স্বনির্ভরে এত বড় হত্যাযজ্ঞ সংঘটিত হয়েছে সে প্রশাসনের পক্ষে নিরপেক্ষভাবে এ ঘটনার তদন্ত করা কখনোই সম্ভব নয়। স্থানীয় প্রশাসনের কোন মহলের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সহযোগিতা ছাড়া শহরের কেন্দ্রস্থলে এসে ১০-১২ জন সন্ত্রাসীর পক্ষে ২৫ মিনিট ধরে এভাবে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে বিজিবি পোস্টের পাশ দিয়ে হেঁটে পালিয়ে যাওয়া কখনোই সম্ভব নয়, আর তাই প্রশাসন কোনভাবে এ হত্যাকা-ের দায় এড়াতে পারে না।’

হামলার ২ দিন পরও জড়িত অপরাধীদের গ্রেফতার না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে চার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে অভিযোগ তুলেন, ‘সন্ত্রাসীরা খাগড়াছড়ি শহরের মহাজনপাড়া, মধুপুর, তেঁতুলতলা ও খাগড়াপুরে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে’।
অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও শনিবারের হত্যাকা- তদন্তে জেলা প্রশাসনে করা কমিটির প্রধান মোহাম্মদ আবু ইউসুফ জানান, প্রশাসন সরকারি দায়িত্বের অংশ হিসেবেই কমিটি করেছে। এরিমধ্যে আমরা অনেক তথ্য সংগ্রহ করেছি। নির্ধারিত সময়ে অর্থাৎ সাত কর্মদিবসের মধ্যেই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। বিচার বিভাগয়ি তদন্ত কমিটি গঠনের এখতিয়ার বিচার বিভাগের।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মো: শহিদুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবং জনমনের উদ্বেগ কাটাতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। আজ মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রামের জিওসি, বিভাগীয় কমিশনার এবং চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি-এর উপস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ন সভা অনুষ্ঠিত হবে।
তিনি ইউপিডিএফভূক্ত চার সংগঠনের দাবির বিষয়ে বলেন, বিচার বিভাগের পক্ষেই বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা সম্ভব। প্রশাসনের পক্ষে যতোটুকু সম্ভব তা আন্তরিকতার সাথেই করা হচ্ছে। এবং তদন্ত কমিটির কাজও ইতিবাচক গতিতে এগোচ্ছে। কারো কোন দাবি থাকলে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছেই করা বাঞ্চনীয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার সকালে খাগড়াছড়ির স্বনির্র্ভর বাজারে সন্ত্রাসীদের গুলিতে প্রাণ হারায় ইউপিডিএফ সমর্থিত পিসিপির খাগড়াছড়ি শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন চাকমাসহ ৬ জন। হামলার সময় পালাতে গিয়ে আরেক বৃদ্ধ রাস্তায় পড়ে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে মারা যায়। নিহত ৭ জনের মধ্যে ৪ জনই পথচারী।

খাগড়াছড়ি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions