সোমবার | ২১ জুন, ২০২১

রাঙামাটিতে পাহাড় ধস মোকাবেলায় ঝুকিপুর্ণ এলাকায় সাইন বোর্ড স্থাপন

প্রকাশঃ ১৭ মে, ২০২১ ০৭:০৪:০৪ | আপডেটঃ ১৯ জুন, ২০২১ ০৮:০২:৪৫  |  ২১২
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। রাঙামাটিতে পাহাড় ধসের সম্ভাব্য পরিস্থিতি মোকাবেলায় পূর্ব প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এ লক্ষে সোমবার বিকালে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বসবাস ও বাড়িঘর তৈরির নিষেধাজ্ঞা জারি করে শহরের রুপনগর ও শিমুলতলী এলাকায় সাইনবোর্ড স্থাপন ও লিফলেট বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসন।

এসময় রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো: মামুন, রাঙামাটি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা তুজ জোহরা, পৌরসভার কাউন্সিলার রবি মোহন চাকমাসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রশাসন জানিয়েছে, প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে রাঙামাটিতে জনমনে পাহাড় ধসের আতংক ও শঙ্কা তৈরি হয়। বর্ষা আসন্ন। তাই পাহাড় ধসের সম্ভাব্য পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য সর্বাত্মক পূর্ব প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। পাহাড় ধসের ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে শহরের ৩১ এলাকা চিহ্নিত করেছে জেলা প্রশাসন। এসব এলাকায় পূর্ব সতর্কতা অবলম্বনে বার্তা পৌঁছানো হচ্ছে। পাশাপাশি  উদ্ধার তৎপরতার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে  প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি ও লোকবল প্রস্তুত রাখতে বলা হয়েছে। হাসপাতাল, অ্যাম্বুলেন্সসহ সর্বাত্মক চিকিৎসা ব্যবস্থা জোরদার রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রধান সড়কসহ জেলার সবকটি রাস্তা মেরামত ও সংস্কার কাজ সম্পন্ন করতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ এবং স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগকে (এলজিইডি) বলা হয়েছে। জনসচেতনতা বৃদ্ধিও জন্য শহরে মাইকিং, লিফলেট বিতরণসহ ব্যাপক প্রচারণা চালানো হবে।       

জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান  বলেন, ২০১৭ সালের ১৩ জুন সদরসহ জেলায় ভয়াবহ পাহাড় ধসের দুর্যোগে ৫ সেনা সদস্যসহ ১২০ জনের প্রাণহানি হয়েছে। ক্ষতিসাধিত হয়েছে ব্যাপক। ভবিষ্যতে যাতে সে ধরনের মানবিক বিপর্যয় না ঘটে, সেজন্য সবাইকে পূর্ব সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। ঝুঁকি এড়াতে সামনে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান, জেলা প্রশাসক।

এসময় জেলা প্রশাসক এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ঝুকিপুর্ণ এলাকার খাস জমি একদল অবৈধভাবে বিক্রি করছে বলে আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে, আমরা যাচাই বাছাই করে প্রয়োজনীয় নিবো।

রাঙামাটি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions