বৃহস্পতিবার | ২১ অক্টোবর, ২০২১

সম্প্রীতির এক অনন্য নিদর্শন খাগড়াছড়ির দীঘিনালায়

প্রকাশঃ ১৩ অক্টোবর, ২০২১ ০৮:৪৬:৪৪ | আপডেটঃ ১৯ অক্টোবর, ২০২১ ০৯:৪৭:৫৬  |  ১৮৩
সিএইচটি টুডে ডট কম, খাগড়াছড়ি। শারদীয় দূর্গোৎসবের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন পুলিশ সদস্যরা। তবে তাদের সব বেলার খাবারের ব্যবস্থা হচ্ছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনায়। অনন্য সম্প্রীতির এমন নিদর্শন পাহাড়ী জেলা খাগড়াছড়ির দীঘিনালায়। শুধু এবার নয়, দীর্ঘ ২১ বছর ধরে সম্প্রীতির এমন ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে দীঘিনালার বোয়ালখালীর ইসলামিয়া মাদরাসা হেফজখানা ও এতিমখানা। দূর্গা পূজায় নয়, রাস উৎসব ও মাদ্রাসার বার্ষিক মাহফিল অনুষ্ঠানেও সার্বজনীন খাবার দাবারের ব্যবস্থা করে আসছে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিনে দেখা যায়, দীঘিনালার বোয়ালখালী এলাকায় রাস্তার এক পাশে নায়ারণ মন্দিরে চলছে শারদীয় দূর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা অপর পাশে বোয়ালখালী ইসলামিয়া মাদ্রাসা হেফজখানা ও এতিম খানা। পাশাপাশি দুই সম্প্রদায়ের দুই প্রতিষ্ঠান হলেও সব কিছু যেন স্বাভাবিক। কারও উৎসব বা ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতায় কারও বিরক্তিবোধ নেই। বরং, প্রতিবেশীর মতো পাশে দাড়িঁছে এ দুই প্রতিষ্ঠান।

গত সোমবার থেকে শুরু হওয়া শারদীয় দূর্গোৎসবের নিরাপত্তার দায়িত্বে আসা পুলিশ সদস্যদের খাবারের ব্যবস্থা হচ্ছে মাদরাসা থেকে। বোয়ালখালী নারায়ণ মন্দিরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশের সহকারী উপ পরিদর্শক মো. খলিলুর রহমান জানান, ৫ সদস্য নিয়ে তিনি সোমবার থেকে দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রীতির অনন্য যে নজির তিনি এখানে দেখেছেন তাতে বিস্মিত তিনি। পুলিশ সদস্যদের প্রতি বেলায় খাবার দেয়া হচ্ছে মাদরাসা থেকে।

বোয়ালখালী নারায়ণ মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মৃদুল কান্তি সেন বলেন, মন্দির ও মাদারাসার পাশাপাশি এ সহাবস্থান ৫০ বছরেরও বেশী সময় ধরে। আমাদের বিভিন্ন উৎসব ও পূজায় সহযোগিতা করছেন মাদরাসা কর্তৃপক্ষ। মাদরাসার বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও আমরা যাই।

বোয়ালখালী মাদরাসার পরিচালক আব্দুল্লাহ মেহেরী বলেন, আমাদের ধর্ম ও নবীজী বলেছেন প্রত্যেক ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে। মাদরাসায় দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে এমন সেবা করার সুযোগ পেয়ে আমিও খুশি। দূর্গা পূজা কিংবা রাস উৎসব মন্দিরের প্রতিটি উৎসবে যদি আমাদের কোন সহযোগীতা প্রয়োজন পড়ে আমরা তাদের পাশে থাকি। এ ছাড়া মাদরাসায় বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও তারা এগিয়ে আসেন।

দীঘিনালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কাশেম বলেন এ উপজেলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধন অটুট সুদীর্ঘ কাল ধরে। প্রতিটি উৎসব এখানে সার্বজনীনতার রূপ পায় সকল সম্প্রদায়ের মানুষের অংশগ্রহণে।

খাগড়াছড়ি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions