মঙ্গলবার | ২৯ নভেম্বর, ২০২২

রাত পোহালেই শুরু হচ্ছে দুর্গোৎসব, চলছে সাজসজ্জার কাজ

প্রকাশঃ ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১১:৩৭:৩৮ | আপডেটঃ ২৯ নভেম্বর, ২০২২ ০২:৪১:৫৫  |  ১৬৫

সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। রাঙামাটিতে মণ্ডপে মণ্ডপে এখন চলছে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি হিসেবে সাজসজ্জার কাজ জেলার সবকটি মণ্ডপে আগেই শেষ হয়েছে প্রতিমা তৈরি আগামীকাল শনিবার ( অক্টোবর) ষষ্ঠী বিহিত পূজার মধ্য দিয়েই এবার শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা

 

পঞ্চমীর দিনে সাজসজ্জা পূজার যাবতীয় প্রস্তুতির কাজই কেবল থাকে বাকি জেলা পূজা উদযাপন সমন্বয়ক কমিটির তথ্য মতে, এবছর রাঙামাটির দশ উপজেলার মোট ৪২টি মণ্ডপে উদযাপিত হতে যাচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব তবে জেলার সবচেয়ে বেশি পুজো হচ্ছে রাঙামাটি সদরে ১৪টি৷ জেলার বাকী নয়টি উপজেলা মিলে ২৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে জানা গেছে, কভিড-১৯ উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে অনেকটা ঢিলেঢালাভাবেই গেল দুই বছর দূর্গাপূজা উদযাপিত হয়েছে রাঙামাটিতে তবে এবছর পুরোদমে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়েই সব 'টি মণ্ডপে পুজোর প্রস্তুতি চলছে


জেলার বিভিন্ন মণ্ডপের পূজা উদযাপন কমিটির দায়িত্বশীলরা  জানিয়েছেন, পূজাকে ঘিরে তারা সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন আজ শুক্রবার শেষ দিনের মতো সাজসজ্জা আলোকসজ্জার কাজ চলছে শনিবার ষষ্ঠী বিহিত পূজার মধ্য দিয়েই শুরু হবে এবারের শারদীয় দুর্গোৎসব সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, পিতৃপক্ষের শেষক্ষণ দেবীপক্ষের সূচনাকালের সময়কেই বলা হয় 'মহালয়া' প্রতি বছরই মহালয়ার মধ্য দিয়ে মর্তলোকে আসেন দেবী মা দুর্গা এবার 'দেবীর গজে আগমন, নৌকায় গমন' এর অর্থ দাঁড়ায় দেবীর গজে আগমন মানে হলো শস্যপূর্ণ বসুন্ধরা আর দেবীর গমন নৌকায় মানে হলো শস্যবৃদ্ধি জলবৃদ্ধি এই শাস্ত্রে যারা বিশ্বাস করেন, তাদের কাছে এই বছরটা অনেক ভালোই জেলার৷

 

নানিয়ারচর উপজেলার একমাত্র পূজা মণ্ডপ জগন্নাথ মন্দির দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ আকাশ কর্মকার বলেন, পূজাকে ঘিরে সাজসজ্জা, আলোকসজ্জা, স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠনসহ আনুষাঙ্গিক প্রস্তুতি শেষের দিকে আগামীকাল ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়েই শুরু হবে এবারের দুর্গোৎসব উপজেলার একমাত্র পূজা মণ্ডপ হওয়ার কারণে আমরা জমকালো আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছি


রাঙামাটি জেলা পূজা উদযাপন সমন্বয়ক কমিটির প্রধান সমন্বয়ক অমলেন্দু হাওলাদার জানান, রাঙামাটি জেলায় এবছর মোট ৪২টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হচ্ছে দুর্গোৎবের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ-প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী আমাদের সার্বিক সহযোগিতা করছে ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসন জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পূজা মণ্ডপের উদযাপন কমিটির সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে এদিকে, পূজাকে ঘিরে জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পূজা মণ্ডপের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সর্বোচ্চ পুলিশি তৎপরতা থাকবে বলে জানিয়েছে জেলা পুলিশ

 

 

রাঙামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জেলা বিশেষ শাখা) মো. অহিদুর রহমান জানান, স্থানীয় ইতোমধ্যে যারা পূজা মণ্ডপে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্বে থাকবেন তাদের তালিকা নিয়েছি, প্রতিটি পূজা মণ্ডপে শটসার্কিট ক্যামেরা (সিসি ক্যামেরা) নিশ্চিত করা হয়েছে এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে দায়িত্বরত পুলিশের পাশাপাশি দুই-তিনটি পূজা মণ্ডপ মিলে একজন পরিদর্শকের নেতৃত্ব টহল টিম থাকবে সব মিলিয়ে অন্যান্যবারের চেয়ে এবার সর্বোচ্চ নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে


পুজো উপলক্ষে রাঙামাটির ৪২টি পূজা মণ্ডপে দেড় মেট্রিকটন করে খাদ্যশস্য অনুদান দিয়েছে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ এছাড়া জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি মণ্ডপে আধা মেট্রিকটন খাদ্যশস্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে

রাঙামাটি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions