মঙ্গলবার | ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮

সবার ভালোবাসায় বাঁচতে চায় বনযোগী ইউপি সদস্য কৃষ্ণা চাকমা

প্রকাশঃ ২২ জুলাই, ২০১৮ ০৫:৫৫:৫৬ | আপডেটঃ ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৮:০০:৩৩  |  ৬৯৩
সিএইচটি টুডে ডট কম, জুরাছড়ি (রাঙামাটি)। রাঙামাটি জুরাছড়ি উপজেলার এরাইছড়ি মৌজার সহজ-সরল কৃষ্ণা চাকমা (৪৫)। এলাকায় দেশ ও দশের সেবা করার স্বপ্ন নিয়ে ইউপি নির্বাচনে বনযোগীছড়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত ওয়ার্ডে সদস্য নির্বাচিত হয়। আরো পুরো উপজেলায় উন্নয়নের ধারা এগিয়ে নিতে ও পিছিয়ে পড়া নারীদের উন্নয়নে কাজ করার প্রত্যায়ে উপজেলা সংরক্ষিত আসনে নির্বাচন করে জয় লাভ করেন তিনি। তার এই স্বপ্ন আজ ধু-ধু বালুচরে ডুবে যাচ্ছে। দুরারোগ্য জরায়ু ক্যান্সারে আক্রান্তে আর্থিক দৈন্যতায় চিকিৎসার অভাবে ঘরের এক কোণে যন্ত্রনায় চটপট করে  মৃত্যুর দিন গুনছে এখন।

অসুস্থ্য কৃষ্ণা চাকমা  বলেন, আমি এত তাড়াতাড়ি চলে যেতে চাই না। দেশ ও দশের সেবা করতে চাই । আমাকে বাঁচাও, আমাকে চিকিৎসা দিলে বেঁচে যাবো, আমাকে সাহায্য করো।  ব্যাকুল কন্ঠে বাঁচার জন্য সহযোগীতার অনুরোধ আর আকুতি তার সবার কাছে।
তার নিজ বাড়ীতে গেলে দেখা যায়, যন্ত্রনায় হাউ-মাউ করছে কৃষ্ণা চাকমা। বিভিন্ন প্রলাপ বকছে আর কোন এক ডাক্তার সাময়িক যন্ত্রনা বন্ধে ইনজেকসন শরীরে পুজ করছে। ইনজেকসন পুজে ৫/৭ মিনিট পর দুর্বল শরীর নিয়ে কথা হয় তার সাথে। তিনি ব্যাকুল কন্ঠে বাঁচার জন্য সহযোগীতা অনুরোধ জানান।

পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, এক বছর আগে থেকে উপসর্গ দেখা দেয়। ২০১৭ সালে এপ্রিল মাসে তার সুচিকিৎসার জন্য প্রথমে রাঙামাটি- চট্টগ্রাম পরে সিরাজগঞ্জ ক্যান্সার নিরাময় হাসপাতাল। এখানেই রোগ ধরা পরে জরায়ু ক্যান্সার। সে  সময় থেকে প্রতিমাসে ২৫ হাজার টাকা খরচে চিকিৎসা নেওয়া হয়। বিগত বছর নভেম্বর মাসে আর্থিক অভাবে চিকিৎসা বন্ধ হয়ে যায়। মাস-খানেক  ভালো থাকলেও চলতি জুন মাসে রোগ মারাত্বক আকার ধারণ করে। যখনি যন্ত্রনা শুরু হয় চটপট করতে করতে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

তার স্বামী অনুপম চাকমা(৫০)জানান, রোগ চিহিৃত হওয়ার পর থেকে চিকিৎসার খরচ জোগাতে নিজের ভিটেমাটি বিক্রি করে দিয়েছি। এখন আর আমার খরচ জোগানোর কোন পথ নেই-কি করবো বুঝে উঠতে পারছিনা !
তার একমাত্র ছোট ছেলে নিয়ন চাকমা ( ১৮) কান্না জনিত কন্ঠে মায়ের সুচিকিৎসার জন্য সর্বস্তরের সহযোগীতার প্রার্থনা জানান।
এদিকে স্থানীয় সাংবাদিক সুমন্ত চাকমার নেতৃত্বে ১১ তরুন জুরাছড়ি দরিদ্র রোগী কল্যান তহবিল নামে তার চিকিৎসার অর্থ তৃণমূল পর্যায় ও বিভিন্ন দপ্তরে আর্থিক সহায়তার আবেদন জানাচ্ছে।

১১ তরুনের মধ্যে অন্যমত জ্ঞান মিত্র, রকি, শংকর চাকমা জানান, আমাদের তহবিলের লক্ষ্য দরিদ্র রোগীদের পূর্ণ চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করা। প্রথম পর্যায় বনযোগীছড়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য ও উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত সদস্য কৃষ্ণা চাকমার চিকিৎসার তহবিল সংগ্রহ করছি। আমাদের বিশ্বাস মানবতা সেবাই বৃত্তবানরা এগিয়ে আসবে।
জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ডাঃ মোঃ হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিন (ক্যান্সার ইপিডেমিওলজি বিভাগ) জানান, নারীর ঘাতক হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস (এইচপিভি) জরায়ু মুখে ক্যান্সারের অন্যতম কারণ।  এতে জরায়ুর মধ্যে তীব্র যন্ত্রণা হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে এর কোনো লক্ষণ নেই। নির্দিষ্ট চিকিৎসা ও পরীক্ষায়র মাধ্যমে তা শনাক্ত করা হয়। তবে এ ক্যান্সারেও রক্তক্ষরণ হতে পারে।

তিনি আরো জানান, এ রোগের চিকিৎসা দেশে হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে রোগ নির্ণয় করা গেলে অপারেশনের মাধ্যমে জরাযু কেটে বাদ দেওয়া যেতে পারে। এছাড়া কেমোথেরাপি এবং রেডিও থেরাপি দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

বনযোগীছড়া ইউপি চেয়ারম্যান সন্তোষ বিকাশ চাকমা জানান, ইউনিয়ন পরিষদে উন্নয়ন খাতে তেমন একটা আয় নেই-ফলে ইউনিয়ন পরিষদ ফান্ড থেকে তেমন একটা সহযোগীতা করা যাচ্ছেনা। তবে সকল ইউপি সদস্যগণ সম্মিলিত ভাবে আর্থিক সহায়তা করা হচ্ছে। আমরা সবাই চাই কৃষ্ণা চাকমা সুস্থ হয়ে উঠুক।

স্বাস্থ্য |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions