শুক্রবার | ২৭ নভেম্বর, ২০২০

সবাই সম্মিলিতভাবে কাজ করলে পার্বত্য এলাকায় কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব হবে : ড. শেখ মো. রেজাউল ইসলাম

প্রকাশঃ ১৯ অক্টোবর, ২০২০ ০৮:৪৮:৩৩ | আপডেটঃ ২৬ নভেম্বর, ২০২০ ১১:৩৩:৪৩  |  ২১৭
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। এ অঞ্চলের কৃষি, শিক্ষা, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে এখানকার মানুষের সুপরামর্শ ও মতামত নিয়ে সমন্বয়ে মাধ্যমে কাজ করলে কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) ড. শেখ মো. রেজাউল ইসলাম। তিনি আরও বলেন, আমরা উন্নয়নই চাই। পার্বত্য এলাকার সহজ সরল পাহাড়িরা অনেক কষ্ট করে ফসল ও কৃষিপণ্য উৎপাদন করলেও ন্যায্যমূল্য পায় না। তারা যাতে উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য পায় তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, ক্ষুদ্র শিল্প স্থাপন করা যায়। আরো নানাবিধ কার্যক্রম হাতে নেয়া যায়। শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে দক্ষতা যাচাই করে দক্ষ ও ভাল মানুষ নিয়োগ দিতে হবে। পার্বত্য এলাকার উন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের সদিচ্ছার কোনো অভাব নেই।

সোমবার (১৯ অক্টোবর) সকালে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সম্মেলনকক্ষে(এনেক্স ভবন) রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ এবং এসআইডি-সিএইচটি এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত সভায় বক্তব্যকালে তিনি একথা বলেন।
 
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায়  উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য নুরুল আলম, পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাঃ আশরাফুল ইসলাম, সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া,  সদস্য সাধন মনি চাকমা, সদস্য জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমা, সদস্য অংসুই প্রু চৌধুরী, নির্বাহী প্রকৌশলী বিরল বড়–য়া, জনসংযোগ কর্মকর্তা অরুনেন্দু ত্রিপুরা, হিসাব ও নিরীক্ষা কর্মকর্তা মোঃ খোরশেদুল আলম চৌধুরী,  বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের সহকারি প্রকৌশলী ফাতেমা আক্তার জেনী, এসআইডি-সিএইচটির ন্যাশনাল প্রজেক্ট ম্যানেজার প্রসেনজিৎ চাকমা, এসআইডি-সিএইচটির ডিস্ট্রিক্ট ম্যানেজার ঔশ^র্য চাকমা, ডিএফও(দক্ষিণ) মোঃ রফিকুজ্জামান শাহ, ডিএফও(উত্তর)আব্দুল সালেক প্রধান, মৃত্তিকা সম্পদ ইনষ্টিটিউটের এসএসও কিশলয় চাকমা, ভেটেরেনারী সার্জন ডাঃ দেবরাজ চাকমা,  জেলা শিক্ষা অফিসের রিসার্চ অফিসার স্মৃতি চাকমা,  তুলা উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান তুলা উন্নয়ন কর্মকর্তা পরেশ চন্দ্র চাকমা, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ বরুন দত্ত, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা শ্রীবাস চন্দ্র চন্দ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সহকারী জেলা প্রাথমকি শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ রবিউল হোসেন, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউটের পরিচালক রুনেল চাকমা, কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক পবন কুমার চাকমা, উপপরিচালক হর্টিকালচার মোঃ নাসিম হায়দার এবং উপপরিচালক হর্টিকালচার ড. মোঃ আব্দুল জব্বার উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতির বক্তব্যে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষকে উন্নয়নের মূল ¯্রােতধারায় নিয়ে আসার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত আন্তরিক।  পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য কোন উন্নয়নমূলক প্রকল্প হাতে নিলে তিনি কখনো না করেননা। এ অঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়ন ও এ অঞ্চলের স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি ১৯৯৭ সালে ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তি সম্পাদনের মাধ্যমে প্রমাণ করেছেন তিনি আমাদের কথা ভাবেন। তাই আমি অনুরোধ করব মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মতই অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীরাও পার্বত্য চট্টগ্রামের বিষয়গুলো নিয়ে সযতœ নজর দিবেন। সমাজসেবা বিভাগ, প্রাথমিক শিক্ষা, পর্যটন ইত্যাদি বিষয় ও বিভাগ পার্বত্য জেলা পরিষদে হস্তান্তরিত হলেও এখানে পর্যটন দিবস, প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ ইত্যাদি কর্মসূচি পালনের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে অন্য কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়। এসব বিষয় নিয়ে প্রতি পদে পদে জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। মন্ত্রণালয়গুলোতে সমন্বয় না থাকায় আমার সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছি। এসব বিষয় সমাধান না হলে পার্বত্য চট্টগ্রামের কাঙ্খিত উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। তিনি প্রধান অতিথিকে এ বিষয়ে নজর রাখার জন্য অনুরোধ জানান।

উন্নয়ন খবর |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions