বুধবার | ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
বান্দরবানে

হৃদয়ের রংধনু চলচ্চিত্র প্রদর্শনী নিয়ে সংবাদ সন্মেলন

প্রকাশঃ ১০ এপ্রিল, ২০১৯ ০৮:৫৭:৩৮ | আপডেটঃ ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৫৭:১০  |  ৮৪১
সিএইচটি টুডে ডট কম, বান্দরবান। বাংলদেশে এই প্রথম ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি মারমা সম্প্রদায়ের একজন অভিনেতাকে মুল চরিত্রে নিয়ে নির্মিত হয়েছে চলচ্চিত্র হৃদয়ের রংধনু। ভ্রমণ পিপাসু তরুণদের হৃদয়ের রঙ্গের অনুভুতি প্রকাশ করা হয়েছে এই চলচিত্রে। চার তরুণকে নিয়ে এই চলাচিত্র নির্মাণ করা হয়। পাহাড়ে সমুদ্রে হৃদয়ের রংধনু এই চলচ্চিত্র প্রদর্শনী চলবে রাঙামাটি, বান্দরবান ও কক্সবাজারে।

বুধবার দুপুরে বান্দরবানের মধ্যম পাড়াস্থ রিখিয়াইং জুস বারে চলচ্চিত্র নির্মাতা রাজীবুল হোসেন এবং অভিনয় শিল্পী খিংসাইমং এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য জানান।
 
সংবাদ সম্মেলনে চলচ্চিত্র নির্মাতা রাজীবুল হোসেন বলেন, বাংলাদেশে ৫৪টি জেলায় হৃদয়ের রংধনু এর শুটিং করা হয়েছে। ২০১৩ সালে এই চলচিত্রটি নির্মান কাজ শুরু করা হয়। ২০১৮ তে ছবিটি গোওয়া ফিল্ম বাজার ইন্ডিয়াতে প্রথম প্রিমিয়ার শো উদ্বোধন করা হয়। ঢাকা ফিল্ম ফেসটিভল এবং ২২ ফেব্রুয়ারি বসুন্ধরা স্টার সেনিপ্লেক্সে প্রীমিয়ার শো হয়, এরপর দেশব্যাপী বিকল্প প্রদর্শনীর যাত্রা শুরু।

সংবাদ সম্মেলনে চলচ্চিত্র নির্মাতা রাজীবুল হোসেন আরো বলেন ,এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পকে বিশে^র দরবারে তুলে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে। মূল চরিত্রে অভিনয় করেছে চার জন, তার মধ্যে আপনাদের এলাকায় বান্দরবানের ছেলে খিংসাই মং মারমা। আমার মনে হয় পার্বত্য এলাকা থেকে এই প্রথম বড় পর্দায় মূল চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ হয়েছে মারমা সম্প্রদায়ের কোন সন্তানের। ১১ এপ্রিল রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে, ১২ ও ১৩ এপ্রিল বান্দরবানে অরুণ সারকি টাউন হলে এবং ১৪ ও ১৫ এপ্রিল কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে বিকাল ৪ টা ও ৭ টায় চলচ্চিত্রটির ২টি শো  প্রদর্শন করা হবে। তিনি আরো বলেন, পরবর্তীতে আমরা অস্ট্রেলিয়া, ইউকে, কানাডা, চিন,মালেশিয়া ও ইন্দোনেশিয়াসহ বিশ্বব্যাপি হৃদয়ের রংধনু চলচ্চিত্রটি প্রদর্শনের ব্যবস্থা নেব।

হৃদয়ের রংধনু চলচ্চিত্রের মুল অভিনেতা বান্দরবানের ছেলে খিংসাই মং মারমা জানান, সকলের সহযোগিতায় আমরা আশা করি একটি ভালো চলচ্চিত্র উপহার দিচ্ছি,এবং আগামী ১২ ও ১৩ এপ্রিল বান্দরবানে অরুণ সারকি টাউন হলে এই শোটি উপভোগ করলে দর্শকরা আরো বেশি মজা পাবে বলে আমার বিশ্বাস। খিংসাই মং মারমা আরো জানান,এই চলচ্চিত্রে দেশকে ভালোবাসা ও দেশের জন্য কাজ করার বিভিন্ন দৃশ্য ফুটে ওঠেছে। এক কথায় বলতে গেলে বাংলাদেশকে দেখতে চাইলে হৃদয়ের রংধনু দেখতে হবে।

শিল্প সাহিত্য ও সংস্কৃতি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions